করোনা মোকাবিলায় আরও সমন্বয় জরুরি

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। দেশ এখন সংক্রমণের শেষ স্তরে। এই পরিস্থিতিতে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কিন্তু মানুষ রাস্তায় বের হচ্ছে, হাটবাজারে ঘুরছে, ত্রাণ নিতে ভিড় জমাচ্ছে। এখন প্রশ্ন উঠেছে, এটা ঠেকানোর দায়িত্ব কার—স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ত্রাণ মন্ত্রণালয় নাকি অন্য মন্ত্রণালয়ের? নাকি মন্ত্রণালয়গুলোর মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসছে না?

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় গোটা সরকারব্যবস্থা এখন যুক্ত। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগসহ ১৫টি মন্ত্রণালয় এখন এই কাজে যুক্ত। কিন্তু মানুষ আশ্বস্ত হতে পারছে না। মানুষের মধ্যে চাপা আতঙ্ক কাজ করছে। মানুষ মনে করছে, মন্ত্রণালয়গুলো সমন্বিতভাবে কাজ করছে না। এই ধারণা সত্যি হয়ে ওঠে যখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে তাঁকে কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কমিটির প্রধান করা হলেও তিনি অনেক কিছু জানেন না। গার্মেন্টস খোলা বা বন্ধ রাখা, মসজিদে নামাজ আদায় বা রাস্তা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত কীভাবে নেওয়া হচ্ছে, তা তিনি জানেন না। গত সোমবার রাজধানীর মহাখালীতে পেশাজীবীদের এক অনুষ্ঠানে জাহিদ মালেক এ কথা বলেন।

জাহিদ মালেকের বক্তব্য সমন্বয়হীনতার ইঙ্গিত দেয়। তবে উদাহরণ আরও আছে। একাধিক মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ের চেয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মধ্যকার সমন্বয়ের বিষয়টি বেশি আলোচিত হচ্ছে। পেশাজীবী চিকিৎসকদের সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি রশীদ-ই-মাহবুব প্রথম আলোকে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে সরকারের পক্ষে নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্যতা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নেই। কোভিড-১৯ মোকাবিলায় এই মন্ত্রণালয় ঠিক সময়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি।

সূত্র: প্রথম আলো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

 

ফেইসবুকে আমরা