image

সাতকানিয়ায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে

এ বিষয়ে সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আব্দুল মজিদ ওসমানী প্রথম আলোকে বলেন, উপজেলায় ৮ মে পর্যন্ত ১৮১ জনের নমুনা সংগ্রহ করে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি) হাসপাতাল, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় ও কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাবে পাঠানো হয়। এর মধ্যে ২৬ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। একজন বৃদ্ধ করোনা শনাক্তের আগেই মারা গেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আব্দুল মজিদ ওসমানী আরও বলেন, উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে গত শনিবার পর্যন্ত ১৪ জন সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরেছেন। অন্যরা চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল, সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

সাতকানিয়ায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, সামাজিক দূরত্ব মেনে না চলা ও অসচেতনার কারণে উপজেলায় কমিউনিটি সংক্রমণ বেড়েছে। তা ছাড়া অনেকেই করোনার উপসর্গ গোপন রেখে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এতে হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীরা সংক্রমিত হচ্ছেন। ইতিমধ্যে সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আটজন স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। এখন দোকানপাট খুলে দেওয়া হয়েছে। এতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন আরও বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সূত্র: প্রথম আলো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

 

ফেইসবুকে আমরা